মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সংবাদ শিরোনাম :
ভিডিও বার্তায় গ্রেফতার বন্ধের দাবি জানালেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী সাংবাদিক আল হাছিব তাপাদারকে দুর্বৃত্তের হুমকি, সাংবাদিকদের নিন্দা, থানায় জিডি জকিগঞ্জে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় মূল অভিযুক্তসহ ৬ জন কারাগারে ১৪ এপ্রিল থেকে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ ঘোষণার চিন্তা করছে সরকার পবিত্র রামাযান ও রামাযানের প্রস্তুতি জকিগঞ্জে ঘর পুড়ে ছাই, খোলা আকাশের নিচে এক পরিবার! তিনদিন পিছিয়েছে হাইয়াতুল উলিয়ার পরীক্ষা সিলেটে সতর্ক অবস্থানে সব বাহিনী, প্রস্তুত এসএমপির ৬ ম্যাজিস্ট্রেট জামেয়াতুল খাইরের ছাত্রাবাস ও শিক্ষাভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠান সম্পন্ন জকিগঞ্জে কথিত ‘গলাকাটা’ নাটক সাজিয়ে মিথ্যা মামলায় হয়রানির অভিযোগ
সুরমা নদীর করাল গ্রাসে মৌলভীচক গ্রাম : বিপর্যস্ত ত্রিশ হাজার মানুষ

সুরমা নদীর করাল গ্রাসে মৌলভীচক গ্রাম : বিপর্যস্ত ত্রিশ হাজার মানুষ


জামাল লস্কর

জকিগঞ্জের ০৮নং কসকনকপুর ইউনিয়নাধীন হাজীগঞ্জবাজার সংলগ্ন মৌলভীরচক গ্রাম সুরমা নদীর ভাঙ্গনের শিকার৷ সুরমার তান্ডবে গ্রামের প্রায় দুইশত পরিবার ভিটেমাটি হারিয়েছেন৷ কেউ আত্মীয়দের বাড়িতে, কেউ অন্যত্র নিজের জায়গায়, কেউ অন্যের দয়ায় দান করা জায়গায় মাথা গুজার ঠাই নিয়েছেন৷
১৯৫৯ সালে ইউনিয়ন কাউন্সিল গঠিত হয়৷ ১৯৬০ থেকে ১৯৬৫ সালের মধ্যে ইউনিয়ন কাউন্সিলের মাধ্যমে তৎকালিন সরকার সুরমা ডাইক নির্মান করে৷ কসকনকপুর পূর্ব মৌলভীচক গ্রামের দক্ষিণ পার্শ্ব দিয়ে যাওয়া এলাকার প্রাচীন রাস্থাকে ডাইকে রূপান্তর করা হয় বিধায় এই ডাইক-ই এলাকার ৫, ৬,৭ ও ৮নং ওয়ার্ডবাসীর চলাচলের একমাত্র রাস্তা হিসেবে বিদ্যমান থাকে৷ ডাইক কাম রাস্তার উত্তর পার্শ্বের মৌলভীচক গ্রামের ২৯টি বাড়ি,হাজী মালিক(রহঃ) মাজার, গ্রামের কবরস্থান, পুরাতন মসজিদ, বরদার কামারশালা সুরমা নদীর ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে যায়৷ যার ফলে প্রায় দুইশত পরিবার ভিটেমাটি হারায়৷
বর্তমানে ভিটেহারা অস্তিত্বহীন প্রায় ত্রিশটি পরিবার ভাঙ্গন কবলিত স্থানে মাটি কামড়ে কোনমতে বসবাস করে৷ ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারণ করায় বর্তমান বাড়ীগুলো ভেঙ্গে এলাকার চলাচলের একমাত্র রাস্তাটিও নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়৷ যার ফলে দুর্ভোগে পড়ে ৫,৬,৭ ও ৮ নং ওয়ার্ডের মানুষ৷ বিকল্প কোন রাস্থা না থাকায় ওয়ার্ড সমূহের প্রায় ত্রিশ হাজার মানুষ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে৷ রাস্থা কাম ডাইক ভেঙ্গে যাওয়ায় বর্ষায় সমস্ত জকিগঞ্জ উপজেলা বন্যার ঝুকিতে পড়ে৷ এলাকাবাসী দফায় দফায় স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ সকল পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করেও ভাঙন প্রতিরোধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি৷ ফলে দুর্ভোগ কাটেনি হাজীগঞ্জবাসীর৷
সম্প্রতি ভাঙ্গন অারও তীব্র হওয়ায় মৌলভীরচক সূরমা নদীর তীরবর্তী মামন মিয়ার বসত ঘর গত ০৬-১২-২০ তারিখ মধ্যরাতে নদীগর্ভে ধ্বসে চলে যায়৷ পার্শ্ববর্তী লোকজন মামনের বৃদ্ধা মা সহ পরিবারের সদস্যদের উদ্ধার করে৷ স্থানীয় স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ জামাল উদ্দিন লস্কর মামন মিয়ার অাশ্রয়ের জন্য মুসলিম হ্যান্ডস সোসাইটি, ফুলতলী সাহেব বাড়ী বরাবরে অাবেদন করেছেন৷ অাবেদনটি এখনও প্রক্রিয়াধীন৷
রাস্থা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ায় বিচ্ছিন্ন জনপদের লোকজন উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়ের দৃষ্টি অাকর্ষণ করেন৷ নদীভাঙ্গন রোধে প্রয়োজনীয় কারিগরি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি অাকর্ষণে গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় এলাকার হাজার হাজার জনগণ বিভিন্ন মিডিয়ার উপস্থিতিতে বিশাল মানব বন্ধনের অায়োজন করে৷ মানব বন্ধনে সদাসয় সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি অাকর্ষণ ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণের সবিনয় অাহ্বান জানিয়ে বক্তব্য রাখেন হাজি মোঃ অাব্দুল লতিফ ,প্রধান শিক্ষক মোঃ জামাল উদ্দিন লস্কর, আব্দুল মানিক মিরাসী, জালাল উদ্দীন, জকিগঞ্জ প্রবাসী ফোরাম সভাপতি সোলেমান আহমদ লস্কর, মাস্টার আবুল কালাম অাজাদ, রেজাউল হক রাজু, আব্দুল বাসিত মিরাসী, কামরুল ইসলাম, মাওলানা জুবায়ের আহমদ, এমাদ উদ্দিন, কামিল অাহমদ প্রমুখ।
মানববন্ধনে বক্তারা জকিগঞ্জ-কানাইঘাটের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব হাফিজ আহমদ মজুমদার এর প্রতি লক্ষ্য করে বলেন, তিনি যেনো অচিরেই ওই নদীভাঙ্গন প্রতিরোধে প্রকল্প পাশ করিয়ে ব্লক কার্পেটিং করে বাংলাদেশের মানচিত্র রক্ষা করে এলাকার মানুষের যাতায়াতের ব্যবস্থা করে দেন ও ভাঙ্গন কবলিত বাড়ীগুলো রক্ষার ব্যবস্থা করেন৷

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





themesba-zoom1715152249
©সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত।
Developed By: Nagorik IT